মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২,  ১২ মাঘ ১৪২৮,  Tuesday, January 25, 2022


দ্যা বাংলা টাইম

আপডেট : 1 week ago

Thu, Jan 13, 2022 8:38 AM

 

ক্লাইমেট স্মার্ট প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও প্রয়োগ বাড়াতে হবে

Card image cap

জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমানে কৃষি উৎপাদনের ক্ষেত্রে বড় হুমকি।  তাই খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা টেকসই রাখতে ক্লাইমেট স্মার্ট প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও প্রয়োগ বাড়ানোর উপর গুরুত্বারোপ করেছেন উন্নয়নশীল ৮ মুসলিম দেশের জোট ডি-৮’র সচিববৃন্দসহ বিজ্ঞানী ও বিশেষজ্ঞরা।  গতকাল ঢাকায় দুই দিনব্যাপী ‘কৃষি ও খাদ্য নিরাপত্তা’ শীর্ষক সপ্তম ডি-৮ কৃষিমন্ত্রী পর্যায়ের সভা শুরু হয়।  প্রথম দিনে সচিব ও উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের মিটিংয়ে সভাপতিত্ব করেন কৃষি সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম।  কৃষি মন্ত্রণালয় ভার্চুয়ালি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলে (বিএআরসি) এ সভার আয়োজন করে।

সভার সভাপতি কৃষি সচিব মো: সায়েদুল ইসলাম বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন বর্তমানে কৃষি উৎপাদনের ক্ষেত্রে বড় হুমকি।  জলবায়ু পরিবর্তন ফসলের উৎপাদন, স্বাস্থ্য ও উৎপাদনশীলতায় বিরূপ প্রভাব ফেলছে।  এ পরিস্থিতিতে, খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থা টেকসই রাখতে হলে ক্লাইমেট স্মার্ট প্রযুক্তির উদ্ভাবন ও প্রয়োগ বাড়াতে হবে।  এ মিটিংয়ের মাধ্যমে আমরা ডি-৮ভুক্ত দেশে ব্যবহৃত ক্লাইমেট স্মার্ট প্রযুক্তি সম্পর্কে জানতে পারব।  একই সাথে তা বিনিময়যোগ্য প্রযুক্তি চিহ্নিতকরণ ও বিনিময়ে সহায়ক হবে।  প্রথম দিনের সভায় ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তির উন্নয়ন : ডি-৮ সদস্য দেশগুলোতে এ সংক্রান্ত সমস্যা, সম্ভাবনা ও ক্লাইমেট স্মার্ট কৃষি প্রযুক্তি হস্তান্তর/ সম্প্রসারণ বিষয়ে আলোচনা হয় এবং ‘ঢাকা ইনিসিয়েটিভ’-এর খসড়া চূড়ান্ত করা হয়।

সভায় বাংলাদেশ প্রান্ত থেকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো: রুহুল আমিন তালুকদার, বিএআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ মো: বখতিয়ার, জোটের সদস্য মিসর, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, মালয়েশিয়া, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান ও তুরস্কের প্রতিনিধিদলের সদস্য, এফএও, ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, আইএফএডি, ইরিসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করেন।

আজ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় ও শেষ দিনে সভাপতিত্ব করবেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক।  এতে ডি-৮ দেশগুলোর কৃষি/খাদ্যমন্ত্রীরা কৃষিক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধির বিষয়ে বক্তব্য রাখবেন।  একই সাথে ‘ঢাকা ঘোষণা’ করা হবে।
এ দিকে গতকাল বুধবার সকালে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে এক সভায় কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক এমপি বলেছেন, বিশ্বের অনেক দেশ এখন বাংলাদেশের উন্নয়নের গল্প শুনতে চায়।  পাকিস্তান আমলে দেশটি দুর্ভিক্ষের দেশ, দরিদ্রের দেশ হিসেবে পরিচিত ছিল।  দুঃখ-কষ্টের আর শোষণ নিপীড়নের দেশ ছিল।  স্বাধীনতার পর অনেক উন্নত দেশ এটিকে তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ বলেছিল, তুচ্ছতাচ্ছিল্য করেছিল।  তারা এখন বাংলাদেশের উন্নয়নের গল্প শুনতে চায়।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কিভাবে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে, তা জানতে চায়।
শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদ আয়োজিত ল্যাপটপ, ক্রীড়াসামগ্রী ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ এবং আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব মো: শহিদউল্লা খন্দকার, শেখ রাসেল জাতীয় শিশু-কিশোর পরিষদের মহাসচিব কে এম শহিদ উল্যা ও পরিষদের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।  পরে কৃষিমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের মধ্যে ল্যাপটপ, ক্রীড়াসামগ্রী ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেন।